৩৬-এর লজ্জা ভুলে ভারতকে এগিয়ে যাওয়ার পরামর্শ স্মিথের

বুধবার, ডিসেম্বর ২৩, ২০২০ ৩:৪২ পূর্বাহ্ণ

ক্রিকেট বিশ্বে এখনো চলছে ভারতের ৩৬ রানে অলআউট হওয়ার আলোচনা। সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটিং লাইনআপের এভাবে অ্যাডিলেড টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ায় বিস্মিত অনেকেই।

কেউ কেউ বলছেন এর প্রতিশোধ ভারত নেবে মেলবোর্নে ২৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু টেস্টে। অনেকে আবার মনে করেন, এ ধাক্কা সিরিজে আর কাটিয়ে উঠতে পারবে না ভারত।

বক্সিং ডে টেস্টের আগে এসব আলোচনার মধ্যেই প্রতিপক্ষকে একটি পরামর্শ দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথ। এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের তিনি অতীত ভুলে সামনে এগিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

অ্যাডিলেডে দিবারাত্রির টেস্টে প্রথম ইনিংসে ভালোই করেছিলেন ভারতের ব্যাটসম্যানরা। পরে অস্ট্রেলিয়াকে ১৯১ রানে অলআউট করে দিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে রেখেছিলেন ভারতের বোলাররা।

কিন্তু তৃতীয় দিন সবকিছু যেন ভোজবাজির মতো পাল্টে যায়। প্যাট কামিন্স ও হ্যাজলউড মিলে ৯ উইকেট নিয়ে ভারতকে অলআউট করে দেন মাত্র ৩৬ রানে। যেটা দেশটির টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বনিম্ন স্কোর।

অ্যাডিলেড টেস্ট জিতে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান স্মিথ আজ ভারতের ব্যাটসম্যানদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘যা হয়েছে, তা হয়ে গেছে। এটা নিয়ে পড়ে থাকার প্রয়োজন নেই। এগিয়ে যেতে হবে।’অ্যাডিলেড টেস্টে ভারতের ব্যাটিং এভাবে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ার বিশ্লেষণ চলছে চারদিকে। স্মিথের চোখে কারণটা কী?

অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান তাঁর দলের বোলারদের প্রশংসাই করলেন, ‘আমরা ফাস্ট বোলিংয়ের অসাধারণ এক প্রদর্শনী দেখেছি। পাঁচ বছরের মধ্যে মিলিতভাবে আমাদের বোলারদের এত ভালো বোলিং করতে এই ম্যাচেই দেখলাম।’

কামিন্স-হ্যাজলউডদের প্রশংসায় এখানেই ক্ষান্ত হননি স্মিথ। অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক এর সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘তারা যে লেংথে বল করেছে, সেটা ছিল অসাধারণ। কখনো কখনো এমনটা হয়। একটা ভালো বলে আপনি ক্যাচ তুলে দেবেন। এসব নিয়ে বেশি ভাবতে নেই। এগুলো ভুলে ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে এগিয়ে যেতে হয়।’

বিষয়টি কে কীভাবে নেবেন বা ভারতের ব্যাটসম্যানরা কী করবেন, তা তাঁদেরই ব্যাপার। স্মিথ হলে এসব নিয়ে না ভেবে সামনে এগিয়ে যাওয়াটাকেই ভালো মনে করতেন, ‌‘প্রত্যেক ব্যক্তিই আলাদা। ম্যাচ শেষে এভাবে অলআউট হওয়াটাকে তারা কীভাবে নেবে, এটা তাদের ব্যাপার। তবে সামনে এগিয়ে যাওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। কীভাবে আরও ভালো করা যায়, প্রত্যেককে সেটাই ভাবতে হবে।’