২২ ঘণ্টা ঘিরে রাখার পর জানা গেল বস্তুটি বো’মা নয়, টাইলস কা’টার যন্ত্র

বৃহস্পতিবার, আগস্ট ৬, ২০২০ ৫:১৮ অপরাহ্ণ

২২ ঘণ্টা ঘিরে রাখার পর জানা গেল বস্তুটি বো’মা নয়-সিলেটে মোটর সাইকেলের মধ্যে বো’মাসদৃশ একটি ব’স্তু নিয়ে তো’লপাড় হয়ে গেছে। তবে র‌্যাব-পু’লিশ-সে’নাবাহিনীর প্রায় ২২ ঘন্টা ঘিরে রাখার পর অবশেষে জানা গেছে, স’ন্দেহজনক য’ন্ত্রটি বি’স্ফোরক কি’ছু নয়, একটি গ্লা’ন্ডার মেশিন (টাইলস কা’টার যন্ত্র)।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় ২২ ঘন্টার এই অ’ভিযান শেষে এমনটি জানিয়েছেন সেনাবাহিনীর ১৭ প’দাতাতিক ডিভিশনের বো’মা নি’স্ক্রিয়করণ দ’লের নেতা লে. কর্ণেল রাহাত। এরআগে বুধবার (৪ আগস্ট) সন্ধার দিকে নগরীর চৌহাট্টা প’য়েন্টে দাঁ’ড় করিয়ে রা’খা একটি মোটরসাইকেলে বো’মাসদৃ’শ ব’স্তুটি দেখতে পায় পু’লিশ। ওই মো’টরসাইকেলটি সিলেট মহানগর পু’লিশের ট্রা’ফিক ভিবাগের সা’র্জেন্ট চয়ন নাইডুর।

বো’মাসদৃশ ব’স্তু দেখতে পাওয়া সম্পর্কে সা’র্জেন্ট চয়ন নাইডু বলেন, বুধবার সন্ধ্যার দিকে আমি চৌহাট্টা মোড়ে মোটরসাইকেল রেখে চ’শমা কি’নতে পাশের একটি দোকানে প্রবেশ করি। দোকান থেকে বের হয়ে মো’টরসাইকেলে উঠতে গিয়ে পা রাখার স্থানে ড্রি’ল মে’শিনের মতো বো’মাসদৃ’শ ব’স্তু দেখতে পাই। সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি ঊ’র্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাই।

চয়ন নাইডুর কাছ থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে হাজির হন মহানগর পু’লিশের উপ কমিশনার (উত্তর) আ’জবাহার আলী শেখ, কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম মিঞাসহ পু’লিশের উ’ধর্তন কর্মকর্তারা। ঘটনাস্থলে গিয়ে তারা জায়গাটিকে ফিতা টেনে ঘিরে রাখেন। এই এলাকা দিয়ে মা’নুষের চলাচল এবং চৌহাট্টা-জিন্দাবাজার সড়কে যান চ’লাচলও ব’ন্ধ করে দেয় পু’লিশ।

রাত ৮টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পু’লিশের ক্রা’ইসিস রে’সপন্স টিম (সিআরটি) এবং অ’পরাধ ত’দন্ত বিভাগ (সিআইডি)-এর সদস্যরা। এরপর র‌্যাব-৯ এর বো’মা নি’স্ক্রিয়কর’ণ দলও ঘটনাস্থলে আসেন। তবে র‌্যা’বের বো’মা নি’ষ্ত্রিয়করণ দল বো’মাসদৃশ ব’স্তুটি অ’পসারণে রাজি না হওয়ায় ঢাকায় পু’লিশের বো’মা নি’স্ক্রিয়করণ দলকে খবর দেওয়া হয়। রাতভর ওই জায়গাটি ঘিরে রাখে পু’লিশ ও র‌্যা’বের সদস্যরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাস্থলে এসে পৌছে সেনাবাহিনীর ১৭ পদাতিক ডিভিশনের বো’মা নি’স্ক্রিয়কা’রী দল।তারা ওই ব’স্তুটি উ’দ্ধার কাজ শুরু করেন। বেলা ৩টার দিকে মোটরসাইকেল থেকে ওই ব’স্তুট অ’পসারণ করে সেনা স’দস্যরা। এরপর কিছুক্ষণ তা পা’নিতে ভি’জিয়ে রাখা হয়। বিকেল ৪টার দিকে লে. কর্ণেল রাহাত জানান, অ’পসারণ করা ব’স্তুটি একটি টা’ইলস কাটার যন্ত্র। কোনো বি’স্ফোরক নয়।

সিলেট মহানগর পু’লিশের ডিসি (উত্তর) আজবাহার আলী শেখ বরৈন, কে ওই য’ন্ত্রটি পু’লিশ সদস্যের মোট’রসাইকেলে রেখে গেছে তা খোঁ’জ নেওয়া হচ্ছে। এদিকে, বুধবার রাত থেকেই পু’লিশের মো’টরসাইকেলের মধ্যে ‘বো’মা’ থা’কার গু’ঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। এতে ন’গরীতে আ’তঙ্ক দেখা দেয়।somoyerkonthosor