সেলফিতে মগ্ন বন্ধুরা, পেছনে ডু’বেই গেল আবির

বুধবার, মার্চ ১১, ২০২০ ১০:০০ পূর্বাহ্ণ

পেছনে ডু’বেই গেল আবির-বন্ধুদের সাথে একটু আনন্দ করতে নদীতে গোসল করতে গিয়েছিল যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের ছাত্র আহসান আবির। কে জানত এটাই হবে তার জীবনে বন্ধুদের সাথে কাটানো শেষ মু’হুর্ত! পদ্মা নদীতে ডুবে ম’র্মান্তিক মৃ’ত্যুর মু’খোমুখি হবেন তিনি!

তবে যখন তিনি ডু’বে যাচ্ছিলেন, তখন তার সামনেই বন্ধুরা ব্যস্ত ছিল সেলফি তুলতে। আবিরের ডুবে যাওয়ার দিকে ন’জরই যায়নি বন্ধুদের। সেই সে’লফিতেই ধরা পড়ল আবিরের ডুবে যাওয়ার ম’র্মান্তিক দৃ’শ্য। আবির যশোর ক্যা’ন্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন।

নি’হত আহসান আবিরের বন্ধু পলাশ আহমেদ বলেন, ‘আমরা সবাই রবীন্দ্রনাথের কুঠিবাড়ী ঘুরে পদ্মার চরে যাই। বন্ধুরা মিলে পদ্মা নদীতে গোসল করতে নেমেছিলাম। সবাই যখন পানিতে খেলছিলাম, তখনই হঠাৎ পা’নিতে ডুবে যায় আবির। কিছুক্ষণ পরে বালুর চরে গেলে আবিরের খোঁজ হয়।

তখন পানিতে খেলা করার সময় যে সেলফি তোলা হয় সেটি দেখে বোঝা যায় আমরা যখন সেলফি তুলছিলাম বন্ধু আবির তখন ডু’বে যাচ্ছিল।’ তা’রা সেলফিতে এতই ম’গ্ন ছিলেন যে পানিতে হাবুডুবু খাওয়া ব’ন্ধুর মাথা মোবাইল ফোনের স্ক্রি’নে দেখা গেলেও তা বুঝতে পারেননি।

যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের সহকারী অধ্যাপক তবিবুর রহমান জানান, ‘সোমবার সকালে যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে ১৩১ শিক্ষার্থী ও ৯ শিক্ষক শিক্ষাসফরে শিলাইদহে রবীন্দ্র কুঠিবাড়ীতে যান। সেখানে যাওয়ার আগেই শিক্ষার্থীদের বলা হয়েছিল একা একা কোথাও যাওয়া

যাবে না এবং নদীতে যাওয়া যাবে না। কিন্তু কয়েকজন নি’ষেধ অ’মান্য করে পদ্মা নদীতে চলে যায়। দুপুর দেড়টার দিকে ১৯ জন শিক্ষার্থী সেখানে গোসল করতে পানিতে নেমেছিল। কিছুক্ষণের মধ্যেই আবির পানিতে ডু’বে যায়। সহপাঠীরা আবিরকে খুঁজে না পেয়ে বিষয়টি শিক্ষকদের জানান।

পরে কুমারখালী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের কর্মকর্তাদের খবর দিলে জাল টেনে এবং ডু’ব দিয়ে খোঁজাখুঁজি করে। কিন্তু শিক্ষার্থীর সন্ধান পাওয়া যায়নি। পরে খুলনা থেকে উ’দ্ধারকারী ডু’বুরি দলের সদস্যরা এলে তাদের সহযোগিতায় রাত ৯টার দিকে আবিরের ম’রদে’হ পাওয়া যায়।