শেষ পর্যন্ত :নাবালিকার সাথে ‘শারীরিক সম্পর্কে’, ফেঁসে যাচ্ছেন নোবেল

বৃহস্পতিবার, আগস্ট ২৯, ২০১৯ ২:৫৫ অপরাহ্ণ

কিছুদিন আগেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও জাতীয় সংগীত বিষয়ে নোবেলের তীর্যক মন্তব্যের জেরে বিতর্ক বড় আকার নিয়েছিল। এরপর শোনা যায়, জি বাংলায় প্রচারিত ‘সা রে গা মা পা’-এর সেটে তিনি বিচারকদের সঙ্গেও অভব্যতা করেছিলেন। বলেছিলেন, তার গান বিচার করার ক্ষমতা বিচারকদের নেই। বাংলাদেশেও বর্তমানে উল্লেখ করার মতো কোনো সংগীতশিল্পী নেই বলে তিনি মন্তব্য করেছিলেন।

এত বিতর্ক ছড়ানো সেই নোবেলের বিরুদ্ধে এবার তোপ দাগলেন তার এলাকার এক নাবালিকা। ঐ নাবালিকার সাথে ‘শারীরিক সম্পর্কে’ লিপ্ত হওয়ার অভিযোগে ফেঁসে যেতে পারেন নোবেল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১৬ বছর বয়সী ঐ কিশোরীর অভিযোগ করেছেন, জি বাংলার সংগীত বিষয়ক প্রতিযোগিতা ‘সা রে গা মা পা’-তে যাওয়ার আগে থেকেই তার সঙ্গে নোবেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। একাধিকবার তারা শারীরিক সম্পর্কেও লিপ্ত হয়েছেন। এমনকী কিশোরীর বাবার কাছ থেকে নোবেল বেশ কিছু টাকাও ধার নিয়েছিলেন।

ঐ কিশোরী আরও অভিযোগ করেন, নোবেল তাকে বিয়ের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। শুধু তার সঙ্গে নয়, এরকম অনেক মেয়ের সঙ্গেই নোবেল এই ধরনের আচরণ করেছেন বলে কিশোরীর অভিযোগ। কিশোরী আরও উল্লেখ করেন, গোপালগঞ্জের রাস্তায় প্রায়ই মাদকাসক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতেন নোবেল। এমনকী তার বাড়ির অন্য সদস্যরাও নাকি অত্যন্ত খারাপ।

কিশোরীর দাবি, নোবেলকে উপযুক্ত শাস্তি দেয়া হোক। যাতে ভবিষ্যতে এরকম অন্যায় করার আগে অন্তত একবার ভাবে। যদিও এসব বিষয় সম্পর্কে জানতে নোবেলের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি সব অভিযোগ অস্বীকার করেন। তার কথায়, তিনি ওই কিশোরীকে চেনেন না। তার কেরিয়ার নষ্ট করে দেয়ার জন্যই এই ধরনের চক্রান্ত করা হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।

প্রঙ্গগত, ‘সা রে গা মা পা’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এপার-ওপার দুই বাংলায়ই ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান গোপালগঞ্জের ছেলে মাইনুল আহসান নোবেল। প্রতিযোগিতার শুরু থেকে তাকে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অন্যতম দাবিদার মনে করা হলেও চূড়ান্ত ফলাফলে তিনি দ্বিতীয় রানারআপ অর্থাৎ তৃতীয় হন। এরপর থেকে তার নানা কাজ ও মন্তব্যের জেরে তিনি শুধু বিতর্কিতই হয়েছেন। সেই বিতর্কের বাতাস এখনও বইছে।সূত্র:bangladeshtoday