শেষ ওভারের নাটকীয় ভাবে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের দুর্দান্ত জয়

বুধবার, জুলাই ৩১, ২০১৯ ৬:১৬ পূর্বাহ্ণ

ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ত্রিদেশীয় সিরিজে ভারতের যুবাদের বিপক্ষে শ্বাসরুদ্ধকর জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশের যুবারা। শেষ ওভারের নাটকীয়তা এবং অধিনায়ক আকবর আলির দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে ভারতকে ২ রানে হারায় বাংলাদেশ। ৩৬ বলে ৪৯ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন আকবর। এই জয়ে ৫ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠে এলো বাংলাদেশ। ভারতের বিপক্ষে এর আগের দেখায় পরাজয়ের স্বাদ পেয়েছিল যুবা টাইগাররা। আর তাঁদের বিপক্ষে আরেকটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে বাতিল হয়েছিল।

বৃষ্টির কারণে প্রথম ইনিংসে ম্যাচের দীর্ঘ কমিয়ে নিয়ে আসা হয় ৩৬ ওভারে। টসে জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান বাংলাদেশের অধিনায়ক আকবর আলি। তাঁর আমন্ত্রণে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দেখেশুনেই করেছিল ভারত। কিন্তু স্কোরবোর্ডে ৩৩ রান যোগ করার পর প্রতিপক্ষ শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন পেসার শরিফুল ইসলাম। ইয়াশ জেসওয়ালের উইকেট তুলে নেন তিনি।

এরপর প্রগনেশ এবং ওপেনার কামরান ইকবাল মিলে দলের হাল ধরেন। ৪৪ রান করে কামরান শামিম হোসেনের বলে ফিরে গেলে ভারতের ইনিংস লম্বা করার জন্য লড়তে থাকেন অধিনায়ক ধ্রুব জুরেল এবং প্রগনেশ।

দুজনই তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি। ৯৭ রানের জুটি গড়ার পর ইনিংসের ৩১তম ওভারে প্রগনেশকে সাজঘরে ফেরেন শাহিন আলমের বলে। খানিক পর দলীয় ২০০ রানের আগে ৭০ রান করে ফেরেন অধিনায়ক ধ্রুব। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ৩৬ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ২২১ রানের পুঁজি পায় ভারত।

২২২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ওপেনার তানজিদ হাসানের উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশের যুবারা। এরপর ম্যাচে বৃষ্টি হানা দিলে খেলা নিয়ে যাওয়া হয় ৩২ ওভারে। বাংলাদেশের লক্ষ্য দাড়ায় ২১৮ রান।

পারভেজ হোসেন ইমন এবং মাহমুদুল হাসান জয় মিলে দলের স্কোরবোর্ডে রান যোগ করলেও ২০ রান করে কার্ত্তিক তিয়াগির বলে আউট হন জয়। চার নম্বরে নামা তৌহিদ হৃদয় এবিং ইমন মিলে দলকে ১০০’র উপর নিয়ে যান।

ইমন তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি। কিন্তু ৪৫ বলে ৫১ রান করার পর রবি বিশ্নইের বলে ফিরে যান তিনি। খানিক পর ৩০ রানে বিদায় নেন হৃদয়ও। এর এক ওভার পর শাহাদাত হোসেনের উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে অনেকখানি ছিটকে যেতে নেয় বাংলাদেশ।

অধিনায়ক আকবর আলি এবং শামিম হোসেন মিলে জুটি গড়ার চেষ্টা করলেও ২২ রান করে মিশ্রর বলে বিদায় নেন শামিম। শেষ ৩৬ বলে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৫১ রান, হাতে ছিল ৪ উইকেট।

এমন অবস্থায় দলকে জয়ের বন্দয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য লড়াই করতে থাকেন মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী এবং আকবর আলি। ১৬ রান করে মৃত্যুঞ্জয় বিদায় নিলেও আকবর ক্রিজে টিকে থেকে একাই লড়তে থাকেন।

শেষ ৬ বলে ৭ রান প্রয়োজন ছিল বাংলাদেশের। ৪৩ রানে ক্রিজে করছিলেন আকবর। এমনঅবস্থায় স্নায়ুচাপ ধরে রেখে দারুণ ব্যাটিং করে তিন বল বাকি থাকতে বাংলাদেশকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান আকবর।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ঃ ২২১/৫ (৩৬ ওভার) (দ্রুব জুরেল ৭০) (শরিফুল ২/৪৯)

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ঃ (২১৯/৮ ৩১.৩ ওভার) (এমন ৫১, আকবর ৪৯) (মিশ্র ৩/৪৭)