দুঃসংবাদ, তিন বছরের জন্য জেলে যেতে পারেন সৌম্য সরকার!

বুধবার, মার্চ ১১, ২০২০ ৬:৩২ অপরাহ্ণ

জেলে যেতে পারেন সৌম্য সরকার-আজ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-২০ ম্যাচ খেলতে মাঠে নেমে ষষ্ঠ বাংলাদেশী হিসেবে অনন্য মাইলফলকে নাম লেখান দলের বাঁহাতি টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার।দেশের হয়ে ৫০তম টি-২০ ম্যাচ খেলার

কৃতিত্ব গড়লেন এই বাহাতি ব্যাটসম্যান। দেশের হয়ে ৭ম ক্রিকেটার হিসেবে ছুয়েছেন এই মাইলফলক। শুধু তাই নয় কালকে আরও একটি সুখবর পেয়েছেন তিনি, ভুলে বাদ যাওয়ার পর কেন্দ্রীয় চুক্তিতে এ ক্যাটাগরিতে নাম উঠেছে তার। তবে এসব খুশির খবর মলিন হয়ে যেতে পারে

একটি দুঃসংবাদ শুনলে। আর তা হলো তিন বছরের জন্য জেলে যেতে পারেন তিনি। ঘটনার পেছনে আছে সৌম্য সরকারের বিয়ে। জীবনের নতুন ইনিংসে নেমেই শা’স্তির মুখে পড়তে যাচ্ছেন সৌম্য ও তার পরিবার। গত ২১ ফেব্রুয়ারি সাতক্ষীরা শহরের মধ্যকাটিয়া

এলাকার বাড়িতে সৌম্য সরকারের বিয়ের আশীর্বাদ অনুষ্ঠিত হয়। সে অনুষ্ঠানে আসন হিসেবে ব্যবহার করা হয় একটি হরিণের চামড়া। যার উপর দাঁড়িয়ে ও বসে আশীর্বাদের সার্বিক কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। আশীর্বাদের কয়েকটি ছবি ফেসবুকে ভাইর‌াল হয়ে পড়ে। একটি ছবিতে দেখা গেছে,

হরিণের চামড়ার তৈরি আসনের ওপর বসে আশীর্বাদ অনুষ্ঠান হয়েছে সৌম্য সরকারের। আরো দুটি ছবিতে দেখা গেছে ওই চামড়ার ওপর সপরিবারে দাঁড়িয়ে সৌম্য সরকার। কেউ কেউ এটাকে ধর্মীয় রীতি বলে মন্তব্য করলেও অনেকে বলেছেন সনাতন ধর্মে এমন কোনো লৌকিকতা নেই।

বিষয়টি সৌম্যের পারিবারিক ব্যাপার। কেউ কেউ বলেছেন, এমন রীতি থাকলেও তা পালন করা উচিত নয়। বিষয়টি তাদের কাছে ভালো ঠেকেনি। তবে সৌম্যের বাবা এটিকে পারিবারিক ঐহিত্য হিসেবে বলছেন। সংবাদ মাধ্যমে তিনি ব‌লেন, ‘এটি মূলত পা‌রিবা‌রিক ঐতি‌হ্যের নিদর্শন।

চামড়া‌টি মূলত প্রার্থনার জন্য ব্যবহার করা হয় এবং বহু পুরানো। যুগ যুগ ধরে ব্যবহৃত হ‌য়ে আস‌ছে, যা বংশানুক্রমে পাওয়া। আমি পেয়ে‌ছি আমার বাবার কাছ থেকে। সরেজমিনে এ ঘটনার তদন্ত করেছেন বন্যপ্রাণী ক্রা’ইম ক’ন্ট্রোল ইউনিটের ইন্সপেক্টর অসীম মল্লিক।

এ বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা পড়লেই ব্যবস্থা নেবে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী ক্রা’ইম ক’ন্ট্রোল ইউনিট।অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হলে তিন বছরের কা’রাদণ্ডের মুখোমুখি হতে পারেন তিনি। বন্যজীবন সংরক্ষণ আই’নের ছয় ধারায় বলা হয়েছে, লাইসেন্স ব্যতীত প্রাণী বা বন্যপ্রাণী ত্বকের অধিকারী ব্যক্তি ৩ বছর বা তার বেশি কা’রাদন্ডের সাজা হতে পারে। ভারতের বিখ্যাত ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিক ট্র্যাকার এমনটাই জানিয়েছে এক প্রতিবেদনে।