দীর্ঘ হচ্ছে লা’শের সারি ! আ’তঙ্কে নিচ্ছে না স্বজনরা

সোমবার, জুন ১, ২০২০ ১:৫৭ অপরাহ্ণ

খুব দ্রুততার সঙ্গে বিশ্বের পরবর্তী ক’রোনাভা’ইরাসের ভ’য়াবহ বি’পর্যয়ের স্থানে পরিণত হতে চলেছে ভারতের সবচেয়ে ধনী শহর মুম্বাই। ভারতের বাণিজ্যিক রাজধানীখ্যাত মুম্বাইয়ে ক’রোনার ভ’য়াবহ প্র’কোপ চলছে। দেশটির মোট করোনা রোগীর এক চতুর্থাংশই মুম্বাইয়ের, বর্তমানে ৪৭ হাজারের বেশি মানুষ সেখানে ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়েছেন।

রো’গীতে উপচে পড়ছে শহরের হাসপাতালগুলো। ম’র্গে স্থান সংকুলান হচ্ছে না। তাই মৃ’তদেহ ওয়ার্ডেই বেডের ওপর রেখে দেয়া হয়েছে। তার পাশেই চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে আ’ক্রান্ত রো’গীদের।

স্বা’স্থ্যসেবা ব্যবস্থা একেবারে ভেঙে পড়ার অবস্থা তৈরি হয়েছে। হাসপাতালের ওয়ার্ডগুলোতে সারি সারি লা’শ পড়ে আছে। শয্যা স’ঙ্কটে রো’গীদের মেঝেতে ঘুমানোর নির্দেশ দেয়া হচ্ছে। ক’রোনাভা’ইরাস আ’ক্রান্ত কিনা সেব্যাপারে প্রমাণ দেখাতে না পারায় বিনা-চিকিৎসায় মা’রা যাচ্ছেন রো’গীরা। প্রত্যেকদিন নতুন নতুন ওয়ার্ড করা হচ্ছে। কিন্তু সন্ধ্যা হতে না হতেই সেসব ওয়ার্ড করোনা রো’গীতে ভরে যাচ্ছে।

মুম্বাইয়ের হাসপাতালের কর্মীরা দিনরাত ২৪ ঘণ্টা ক’রোনা রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। ক’রোনার প্রা’দুর্ভাব শুরু হওয়ায় জনবলের অভাবে অন্যান্য রো’গীদের চিকিৎসাসেবাও ব’ন্ধ হয়ে গেছে।

সেন্ট্রাল মুম্বাইয়ের সরকারি কিং এডওয়ার্ড মেমোরিয়াল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সাদ আহমেদ বলেন, ‘আমরা প্রত্যেকদিন নতুন নতুন ওয়ার্ড চালু করছি। কিন্তু দিনের শেষে ক’ভিড-১৯ রো’গী দিয়ে সেগুলো পূর্ণ হয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে এখানে অ’ত্যন্ত খা’রাপ অবস্থা। হাসপাতালের সব ওয়ার্ডই কভিড-১৯ ওয়ার্ড এবং ধারণক্ষমতার পুরোটাই রোগী দিয়ে পরিপূর্ণ।

ক’রোনাভা’ইরাস ম’হামারির প্রাথমিক এপিসেন্টার নিউইয়র্ক এবং ইউরোপে থাকলেও বর্তমানে তা ঘুরছে ব্রাজিল এবং ভারতের দিকে। দু’বর্ল স্বা’স্থ্যসেবা অবকাঠামো এবং নি’ম্নমানের জীবনযাত্রার কারণে ক’রোনাভা’ইরাসের উর্বর ভূমি হয়ে উঠছে ভারত। এরই মধ্যে ক’রোনায় মৃ’তের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেছে ভারত।

গত সপ্তাহে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, মুম্বাইয়ের সরকারি লোকমান্য তিলক হাসপাতালের একটি ওয়ার্ডে ক’রোনাভা’ইরাসে মৃ’তদের দেহ পড়ে আছে। পাশের শয্যায় ক’রোনা রোগীরা। এই ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ডিনকে সরিয়ে দেয়। সম্প্রতি মুম্বাইয়ের কিং এডওয়ার্ড মেমোরিয়াল হাসপাতালের ওয়ার্ডে ম’রদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়।