এবার ব্যাংক থেকে কোটি টাকা তুলে ফাঁ’সলেন জেলারের স্ত্রী-শ্যালক

বৃহস্পতিবার, আগস্ট ২৯, ২০১৯ ৫:৫২ অপরাহ্ণ

কয়েক লাখ অ’বৈধ টাকা ও কয়েক কোটি টাকার চেক-এফডিআরসহ কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গ্রে’ফতার জে’লার (বর্তমানে বরখাস্ত) সোহেল রানা বিশ্বা’সের বি’রুদ্ধে করা মানি লন্ডারিংয়ের মা’মলায় তার স্ত্রী’ হোসনে আরা পপি ও শ্যালক রাকিবুল হাসানকেও আ’সামি করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা ময়মনসিংহ দুদকের সহকারী পরিচালক সাধন চন্দ্র সূত্রধর এ তথ্য জানিয়েছেন।

গত বছরের ২৬ অক্টোবর চট্টগ্রাম কারাগারের জে’লার সোহেল রানা বিশ্বা’সকে ময়মনসিংহগামী ট্রেন থেকে নগদ ৪৪ লাখ ৪৩ হাজার টাকা, ২ কোটি ৫০ লাখ টাকার এফডিআর (স্থায়ী আমানত), ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার নগদ চেক, ১২ বোতল ফেনসিডিলসহ রেলওয়ে পু’লিশ গ্রে’ফতার করে। তিনি চট্টগ্রাম থেকে ময়মনসিংহে গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন।

জে’লার সোহেল রানা গ্রে’ফতারের দুই দিন পর তার স্ত্রী’ ও শ্যালক ময়মনসিংহ শাখার মা’র্কেন্টাইল ও প্রিমিয়ার ব্যাংক থেকে এক কোটি টাকার এফডিআর উত্তোলন করে নেন। ৫০ লাখ টাকা পরিমাণে দুজনের নামে দুটি এফডিআর ছিল। পু’লিশের হাতে এফডিআর থাকা সত্ত্বেও কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে প্রতারণার মাধ্যমে তারা এক কোটি টাকা ব্যাংক থেকে তুলে নেন। এরপর ঘটনাটি দীর্ঘদিন যাবত ত’দন্ত করা হচ্ছে। মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা এই দুজনকে এ বিষয়ে একাধিকবার জিজ্ঞাসাবাদ করলেও তারা এখনও টাকার উৎস জানাতে পারেননি।

ধারণা করা হচ্ছে- ওই এক কোটি টাকা জে’লার তার স্ত্রী’ ও শ্যালেকের নামে ব্যাংকে এফডিআর করেছিলেন। জে’লার গ্রে’ফতারের খবর পেয়েই প্রতরণার মাধ্যমে তারা টাকাগুলো ব্যাংক থেকে তুলে নেন। টাকার উৎস বলতে না পারায় দুইজনকে মা’মলার আ’সামি করা হচ্ছে বলে জানান ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা সাধন চন্দ্র সূত্রধর

জে’লার সোহেল রানা বিশ্বা’স গ্রে’ফতার হওয়ার পর ভৈরব রেলওয়ে থানায় পৃথক দুটি মা’মলা করে পু’লিশ। পরে মা’দক মা’মলা’টি পু’লিশ ত’দন্ত করে কিশোরগঞ্জ আ’দালতে চার্জশিট দেয়। আর মানিলন্ডারিং মা’মলা’টি ময়মনসিংহ দু’র্নীতি দমন কমিশন (দুদক) অফিস ত’দন্ত করছে। এই মা’মলা’টি ত’দন্ত করতে গিয়ে গত ১০ মাসে তিনজন ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা পরিবর্তন হয়েছে। ঘটনার পর জে’লারকে কর্তৃপক্ষ সাময়িক বরখাস্ত করে দুটি ত’দন্ত কমিটি গঠন করে। বর্তমানে জে’লার সোহেল রানা কিশোরগঞ্জ কারাগারে ব’ন্দি আছেন। তিনি একাধিকবার আ’দালতে জামিন চাইলেও তাকে জামিন দেননি আ’দালত। এমনকি উচ্চ আ’দালত হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টে তার জামিন আবেদন নাকচ হয়েছে।

এদিকে দীর্ঘ ত’দন্তে জে’লারের নামে বেনামে ২৬টি ব্যাংক হিসাবে আরও প্রায় ৪ কোটি টাকার সন্ধান পেয়েছে দুদক। এই টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনক্রমে জ’ব্দ করা হয় বলে জানান মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা।

পু’লিশের হাতে গ্রে’ফতারের পর জে’লার বলেছিলেন ৫ লাখ টাকা তার নিজের এবং বাকি টাকা তৎকালীন চট্টগ্রাম কারাগারের ডিআইজি পার্থ কুমা’র বণিক ও সিনিয়র জে’ল সুপার প্রশান্ত কুমা’রের। তখন যদিও দুজন এ কথা অস্বীকার করেছিলেন। তারপর গত দেড় মাস আগে পার্থ কুমা’র বণিককে ঢাকার বাসা থেকে ৮০ লাখ টাকাসহ গ্রে’ফতার করে দুদকের কর্মক’র্তারা। এরপর মা’মলার ত’দন্তের মোড় ঘুরে যায়।

এর আগে ভৈরবের ঘটনার পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ত’দন্ত কমিটি ঘটনা ত’দন্ত করতে গিয়ে থলের বিড়াল বেরিয়ে আসে। ত’দন্তে চট্টগ্রাম কারাগারের ঘুষ দু’র্নীতিসহ কারাগারের ভেতরে মা’দক ব্যবসায় ৪৮ জনের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়। ত’দন্ত কমিটি এই ত’দন্ত প্রতিবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দাখিল করে। এরপর ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদ করতে পার্থ কুমা’র বণিককে ঢাকায় তলব করা হয়। তখনই তিনি ৮০ লাখ টাকাসহ গ্রে’ফতার হন।

মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা ময়মনসিংহ দুদকের সহকারী পরিচালক সাধন চন্দ্র সূত্রধর বৃহস্পতিবার দুপুরে জাগো নিউজকে জানান, এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ মা’মলা। জে’লারের স্ত্রী’ ও শ্যালক এফডিআরের টাকার কোনো উৎস্য দেখাতে পারছেন না। তারা দুজন প্রতারণার মাধ্যামে ব্যাংক থেকে এক কোটি টাকা তুলে নিয়েছেন। এ কারণে দুজনকে মা’মলার আ’সামি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এছাড়াও জে’লারের নামে বেনামে ২৬টি ব্যাংক হিসেবে থাকা প্রায় ৪ কোটি টাকা জ’ব্দ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এই মা’মলা’টি আগে দুইজন ত’দন্ত করেছে। গত দেড়মাস আগে আমাকে মা’মলা’টি ত’দন্ত করতে দেয়া হয়। সব কিছু যাচাই-বাছাই করে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে মা’মলা’টি ত’দন্তের কারণে আ’দালতে চার্জশিট দিতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে।jagonews24