আরব বিশ্বের পর কানাডাতে ধরা খাচ্ছে ইসলাম বি’দ্বেষী ভারতীয়রা

শনিবার, মে ৯, ২০২০ ৫:০২ অপরাহ্ণ

সংযুক্ত আরব আমিরাতে হেন্দ আল কাসিমি ও কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন টুডোর : উভয় দেশই ইসলামবি’দ্বেষের বি’রুদ্ধে সোচ্চার হয়েছে –

গত কয়েক বছর ধরে ভারতে কোনো ধরনের পরিণতি ছাড়াই ইসলামফোবিয়া ও মুসলিমদের প্রতি ঘৃ’ণা নজিরবিহীন মাত্রায় বেড়েছে। আর ভারতীয় বেশির ভাগ জিনিসের মতো, এই গোঁড়ামিও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে গেছে। তবে ভারতে ক্ষমতাসীন বিজেপি এবং এমনকি নরেন্দ্র মোদি সরকারের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সমর্থন পেয়ে অবাধে চলার স্বাধীনতা পেলেও উপসাগরীয় দেশগুলো এবং এখন কানাডার মতো দেশে বসবাসরত গোঁড়া ভারতীয়দের জন্য অবস্থা অন্য রকম হচ্ছে।

উপসাগরীয় দেশগুলোতে সামাজিক মাধ্যমে ইসলামফোবিয়া বি’স্তারের অভিযোগে বেশ কয়েকজন প্রবাসী ভারতীয় চাকরিচ্যুত হওয়ার পর এখন একই ধরনের ঘৃ’ণা প্রচারের বি’রুদ্ধে কানাডাও ব্যবস্থা গ্রহণ করছে।

ওনতারিওভিত্তিক রিয়েল এস্টেট এজেন্ট রবি হুদা আজান প্রচারের অনুমতিকে জ’ঘন্য ভাষায় সমালোচনা করে ব্রাম্পটনের মেয়র প্যাট্রিক ব্রাউনের ক্ষো’ভের মুখে পড়েন।

রবি তার টুইটে বলেছিলেন, এরপর কী হবে? উট আর ছাগলের জন্য আলাদা লেন, কো’রবানির নামে বাড়িতে পশু জ’বাই করার অনুমতি, সব নারীকে মাথা থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত ঢেকে রাখার আইন প্রণয়ন, আর সবই কারা হবে বোকাদের তু’ষ্ট করার জন্য।

এই ইসলামবি’দ্বেষী জানতেন না যে চার্চে সীমিত আকারে ঘণ্টা বাজানোর যে আইনটি ছিল তা এখন সবার জন্য সম্প্রসারিত হয়েছৈ। তিনি সম্ভবত ভুলে গিয়েছিলেন যেএটা ভারত (যেখানে এ ধরনের মন্তব্য হাজার হাজার লাইক আর রিটুইট হয়) নয়, কানাডা। তিনি অল্প সময়ের মধ্যেই তার শিক্ষাটি পেয়ে গেলেন।

রবি পরে তার টুইটটি মুছে ফেলেন। অনেকেই তার তীব্র সমালোচনা করেছেন। আর রিয়েল এস্টেট কোম্পানি তাকে চা’করিচ্যুত করেছে। তাকে ম্যাকভিল পাবলিক স্কুল স্কুল কাউন্সিল চেয়ার থেকে সরিয়ে দিয়েছে।

এর আগে উপসাগরীয় দেশগুলোতেও এ ধরনের প্রবণতা দেখা গিয়েছিল। এসব দেশে কো’ভিড-১৯ ছড়ানোর জন্য মুসলিমদের টা’র্গেট করে ইসলামফোবিক পোস্ট দেয়ার জন্য বেশ কয়েকজন প্রবাসী ভারতীয়কে বর’খাস্ত করা হয়।

ইসলামফোবিয়ার বি’রুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে কানাডা প্রশংসিত হলেও দেশে কিন্তু অবস্থা ভিন্ন।গত কয়েক বছর ধরেই ভারতে মুসলিম স’ম্প্রদায়ের বি’রুদ্ধে ঘৃ’ণা ও সা’ম্প্রদায়িক মেরুকরণ চলছে। এটি ভারতের রাজনৈতিক শ্রেণির কাছে সবচেয়ে কম খরচে নির্বাচনে জয়ের ফরমুলায় পরিণত হয়েছে। এতে করে নিরাপত্তাহীনতা ও সা’ম্প্রদায়িক বিভাজনের গভীর ফা’টল দেখা গেলেও তা প্রতিকারের কোনো পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না।

২০১৪ সালের লোকসভার নির্বাচনের পর থেকে ভারতের সামাজিক মাধ্যমে মু’সলিম’বিদ্বেষ বাড়ছে। প্রতিটি খারাপের জন্য মুসলিমদের দা’য়ী করার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

আর দেশে যেহেতু এ ধরনের কাজ করে পার পাওয়া যায়, তবে তারা কেন বিদেশেও ওই চেষ্টা চালাবে না? কিন্তু অবস্থার এত দূর অবনতি হয়ে যায় যে মুসলিম প্রাধান্যপূর্ণ উপসাগরীয় দেশগুলোতে কাজ করা ও বসবাস করেও তারা ভ’য়াবহ মাত্রায় বি’দ্বেষ ছড়াতে থাকে। তারা এটাকে কোনো স’মস্যা মনে করেনি।

কিন্তু এবার ভারতে মুসলিমদেরকে টা’র্গেট করার বি’রুদ্ধে আবর দেশগুলো সোচ্চার হয়েছে। আবার উপসাগরীয় দেশগুলোতে কর্মরতরা সমস্যায় পড়লে তার আ’ঘাত ভারতেও লাগবে। ভারতের অর্থনীতি এখানকার অর্থের ওপর নির্ভরশীল। ভারতের মোট প্রবাসী আয়ের অর্ধেকের বেশি আসে উপসাগরীয় দেশগুলো থেকে।

উপসাগরীয় দেশগুলো ইসলামবি’দ্বেষী পোস্টের বি’রুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার পর কানাডাও তাতে যোগ দিয়েছে। এখন আশা করা যায় যে অন্যান্য দেশও এ ব্যাপারে এগিয়ে আসবে।

দি প্রিন্ট