অবশেষে যেভাবে ডমিঙ্গোকে মুগ্ধ করেছেন তাসকিন-রুবেলরা

শুক্রবার, অক্টোবর ২৩, ২০২০ ৫:০৫ অপরাহ্ণ

ডমিঙ্গোকে মুগ্ধ করেছেন তাসকিন-রুবেলরা-ম’হামারী করো’নাভাইরাসের কারণে দেশের ক্রিকেট বন্ধ ছিল টানা প্রায় সাত মাস। তারপর প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট মাঠে ফিরলে রাজত্ব করে চলেছেন পেসাররা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আয়োজিত চলতি প্রেসিডেন্ট’স কাপে প্রতি ম্যাচেই মু’গ্ধ করেছে পেস ডিপার্টমেন্ট।

তাসকিন আহমেদ, রুবেল হোসেনরা আগ্রসন দেখাচ্ছেন। সাইফউদ্দিন, আল-আমিন হোসেন মুগ্ধ করছেন লাইন লেংথে। ওদিকে দিনকে দিন কা’টারে যেন ধা’র ফিরে পা’চ্ছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তাদের দেখাদেখি ভালো বোলিং করেছেন কয়েক মাস আগে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জেতা তরুণ শরিফুল ইসলামও। পেস ডিপার্টমেন্টের একত্রে জ্বলে উঠাতে বেজাই খুশি প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

বাংলাদেশের হেড কোচের দায়িত্ব নিয়েই বলেছিলেন, একটা শক্তিশালী পেস বোলিং অ্যাটাক তৈরি করতে চান তিনি। যারা দেশে এবং বিদেশে সমান তালে পারফর্ম করতে পারবেন। প্রেসিডেন্ট’স কাপে পেসারদের পারফরম্যান্স দেখে সেই প্রত্যাশার কথা মনে পড়ে গেছে ডমিঙ্গোর। বুধবার (২২ অক্টোবর) সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে

ভার্চূয়াল আলাপে যুক্ত হয়ে দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ বলছিলেন, ‘আমরা গত সাত-আট মাস ধরে কয়েকজন তরুণ ফাস্ট বোলারের সন্ধান করছিলাম। এখন আমরা একটা ফাস্ট বোলারের গ্রুপকে উন্নতি করতে দেখছি যারা প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ হতে পারে। আপনি তাসকিন, ফিজ (মোস্তাফিজ), আল-আমিন, হাসান মাহমুদ, খালেদ,

শরিফুলের দিকে তাকান। আমাদের এখন ছয়-সাতজন ফাস্ট বোলার আছেন যারা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ভালো পারফরম্যান্স দেখাতে পারেন। আমি মনে করি গত দুই সপ্তাহ সত্যিই ভালো কিছু বোলিং হয়েছে। যেটা আমার জন্য অনেক বড় ইতিবাচক দিক।’ হেড কোচ বলেন, ‘আপনি তাসকিনের ফিটনেস দেখুন। রুবেল যেভাবে

এগুচ্ছে এবং খালেদ যে কিনা মাত্রই বড় ইনজুরি থেকে ফিরল। ছেলেরা সত্যিই তাদের ফিটনেস নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করেছে। আমরা তাদের স্কিল বাড়াতে এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পারফর্ম করতে পারে তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি। তাসকিন যেভাবে নিজেকে পরিবর্তন করেছে সেটা ইতিবাচক। সে অনেক পরিশ্রম করেছে। তার শারীরীক অবস্থা এখন খুব ভালো। সে একটি বা দুটি স্পেলের চেয়েও বেশি বোলিং করতে পারে। এটা আমাদের জন্য আনন্দদায়ক।’

যুব বিশ্বকাপ জেতা দীর্ঘদেহী তরুণ পেসার শরিফুল ইসলাম গত বুধবার নাজমুল একাদশের বিপক্ষে ৩৭ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচ জিতিয়েছিলেন। ডমিঙ্গো বললেন, ঠিক পথেই এগুচ্ছেন শরিফুল, ‘তাকে নিয়ে আরও কাজ করার আছে। বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের ক্ষেত্রে বল ভেতরে ঢুকাতে শেখাতে হবে তাকে। তার ভালো গতি, বাউন্সার আছে, মনোভাবও দারুণ। সব সময় শিখতে চায়। এগুলো একজন তরুণ ফাস্ট বোলারের জন্য ভালো বৈশিষ্ট্য। সে একজন আত্মবিশ্বাসী তরুণ।’-সারাবাংলা